মাছের রেনু চাষে স্বাবলম্বী সিরাজুল ইসলাম চেরু


প্রকাশের সময় : জুন ১৩, ২০২৩, ৩:১৬ অপরাহ্ন / ২৫৫
মাছের রেনু চাষে স্বাবলম্বী সিরাজুল ইসলাম চেরু

প্রত্যাশা প্রতিবেদক
কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে রেনু চাষ করে বেশ স্বাবলম্বী হয়েছেন সিরাজুল ইসলাম চেরু। তিনি উপজেলার বাতিসা ইউনিয়নের বাতিসা গ্রামের বাসিন্দা।
জানা গেছে, ১৯৮৬ সালে অন্যের একটি পুকুর লিজ নিয়ে প্রথমে রেনু পোনা চাষ শুরু করেন। পরে ব্যবসা মোটামুটি ভালো হলে একই বছর স্থানীয় কৃষি ব্যাংক থেকে তৎকালীন সময় ৫ হাজার টাকা লোন তুলেন এই মৎস চাষি। এর পর আর পিছনে ফিরতে হয়নি তাকে। একাধিক পুকুরে নিজস্ব উৎপাদিত কাতল, মৃগেল, সিলভার কার্প, রুই, কালিভাউস, গøাস কার্প,স্বরপুটি, দেড় আড়াই ও আড়াই দেড় সাইজের রেনু উৎপাদন করে বিক্রি করছেন বিভিন্ন চাষিদের কাছে। এর পাশাপাশি তার পুকুর থেকে রেনু মাছের পোনা যাচ্ছে ঢাকা- চট্রগ্রাম, ফেনী, নোয়াখালী, হেয়াঁকো, বারৈয়ারহাট, লাকসাম, নাঙ্গলকোট ও কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে। এই ব্যবসার টাকা দিয়ে পরিবারের ভরণপোষনসহ তার ভাই/বোনদের করেছেন বেশ উচ্চ শিক্ষিত এবং নিজের ছেলেদের পাঠিয়েছেন বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। তার দেখাদেখি এলাকার অনেক বেকার যুবক এখন এই রেনু পোনা চাষের দিকে ঝুঁকছেন। মৎস্য চাষি মোঃ সিরাজুল ইসলাম সেরু বলেন, প্রায় দীর্ঘ ৩৭ বছর ধরে আমি রেনু পোনা মাছ চাষ করে আসছি। এলাকার সবাই আমাকে চেরু নামে চিনে। রেনু পোনা ব্যবসা করে আলহামদুলিল্লাহ আমি অনেক ভালো আছি। রেনু উৎপাদন করে উপজেলা পর্যায়ে পেয়েছি শ্রেষ্ঠ মৎস্য পুরস্কার। সরকারিভাবে যদি আরো একটু সহযোগিতা পাই তাহলে ভবিষ্যতে এই রেনু চাষকে বৃহত্তর আকারে নিয়ে যাব ইনশাল্লাহ।
সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ শেফাউল আলম বলেন, রেনু পোনা উৎপাদনে সিরাজুল ইসলামের দক্ষতা অনেক বেশী। তিনি পুরোনো দিনের মাছ চাষি। আমরা তাকে একাধিকবার পুরস্কৃত করেছি। তিনি এলাকার একজন প্রতিষ্ঠিত রেনু চাষি। এই উপজেলা থেকে জাতীয় মৎস্য পুরস্কারের জন্য আমরা তাকে বাছাই করেছি। প্রয়োজনে ভবিষ্যতে সবধরনের সহযোগিতা করা হবে তাকে।

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
.#0
#20
#
20